একজন গর্ভবতী মায়ের কি কি টিকা নেয়া অত্যাবশ্যক?

একজন গর্ভবতী মায়ের কি কি টিকা নেয়া অত্যাবশ্যক?

শিষ্য প্রশ্ন করেছেন ডিসেম্বর 14, 2017 এ বিভাগ দেহ ও স্বাস্থ্য.

সন্তান নেওয়ার আগে আপনার উচিত যে রুটিন টিকাগুলো দেওয়া হয়, সেগুলো ধাপে ধাপে নেওয়া। জন্মের পর আমাদের দেশে বর্তমানে ইপিআই সিডিউলে যেসব টিকা দেওয়া হয়, সেগুলো নেওয়া হয়েছে কি না তা প্রথমেই নিশ্চিত হোন। গর্ভবতী হওয়ার পূর্বে যে টিকাটি নেওয়া খুব গুরুত্বপূর্ণ, সেটা হচ্ছে রুবেলা টিকা। গর্ভবতী মায়েদের রুবেলার ইনফেকশন হলে সন্তান জন্মগত ত্রুটি নিয়ে জন্মগ্রহণ করতে পারে, এমনকি জন্মের পূর্বেও সন্তানের মৃত্যু হতে পারে। গর্ভবতী হওয়ার আগে রক্ত পরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়ে নিন আপনার রুবেলা প্রতিরোধের ক্ষমতা আছে কি না। আমাদের দেশে অধিকাংশ নারীই নয় মাস বয়সেই হামের সঙ্গে রুবেলার টিকার প্রথম ডোজ নিয়ে থাকেন, আর দ্বিতীয় ডোজটি নিয়ে থাকেন ১৫ বছর বয়সে। যদি আপনার রুবেলা টিকা না নেওয়া থাকে, তাহলে দ্রুত টিকাটি নিয়ে নিন। নিশ্চিত করুন, রুবেলার টিকা নেওয়ার কমপক্ষে এক মাস পর আপনি গর্ভধারণ করছেন। অন্যভাবে বললে, রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে রুবেলার প্রতিরোধ ক্ষমতা আপনার শরীরে তৈরি হয়েছে, এটা নিশ্চিত হয়েই গর্ভধারণ করুন। হুপিং কাশি এমন একটি রোগ যা গর্ভবতী মায়েদের হলে গর্ভের সন্তানের মারাত্মক সমস্যা হতে পারে, এমনকি নিশ্বাসও বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। হেপাটাইটিস বি ইনফেকশনের কারণে লিভারের সমস্যা, এমনকি লিভারের ক্যান্সারও হতে পারে। গর্ভবতী মা যদি হেপাটাইটিস বি-তে আক্রান্ত থাকেন, তাহলে সন্তান জন্ম দেওয়ার সময় সন্তানেও এই রোগ ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এছাড়া গর্ভবতী মায়েদের যদি ফ্লু থাকে, তাহলে গর্ভের সন্তানও বিপদের মধ্যে থাকে। মায়ের ফ্লুয়ের কারণে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই সন্তান জন্ম নিতে পারে, সন্তানের আকার এবং ওজন কম হতে পারে, এমনকি মারাও যেতে পারে। তাই প্রতিটি গর্ভবতী মায়েদের হুপিং কাশি, হেপাটাইটিস বি এবং ফ্লুয়ের টিকা নেওয়া উচিত। আমাদের দেশে এই তিনটি টিকাই রুটিন ইপিআই সিডিউলে টিটেনাস এবং ডিপথেরিয়ার সাথে তিনবার দেওয়া হয়ে থাকে যথাক্রমে ৬ সপ্তাহ, ১০ সপ্তাহ এবং ১৪ সপ্তাহ বয়সে। তাই গর্ভবতী মায়েদের নিশ্চিত হওয়া উচিত বাচ্চাকালে তারা এই টিকাগুলো নিয়েছিলেন কি না। যদি সেই সময়ে না নেওয়া হয়ে থাকে, তাহলে গর্ভধারণের ২৭ থেকে ৩৬ সপ্তাহের মধ্যেই এই তিনটি টিকা একসঙ্গে নেওয়া যেতে পারে। এছাড়াও গর্ভকালীন সময়ে যেন মা এবং অনাগত সন্তান বিপদমুক্ত থাকেন, সেজন্য প্রতিটি নারীকে ১৫ বছর বয়সে হাম এবং রুবেলার টিকার পাশাপাশি টিটির প্রথম ডোজ, ৪ সপ্তাহ পরে

মহাগুণী উত্তর দিয়েছেন ডিসেম্বর 14, 2017 এ.

গর্ভবতী মায়েদের টিকার বিষয় বলতে হলে প্রথমেই আসে TT vaccine (টিটি টিকা) এর কথা! আমাদের দেশে সম্প্রসারিত টিকা দান কর্মসূচির আওতায় TT ভ্যাকসিন ১৫ বসর বয়স থেকে শুরু করে ৫ ডোজ টিকা ২ বসর ৭ মাসের মধ্যে ৫ গ্রহণ করলে ভবিষৎতে ওই মা এবং তার সন্তানের টিটেনাস বা খিচুনি বা ধনুষ্টঙ্কার এর প্রতিরোধ করবে! উল্লেখ যে ধনুষ্টঙ্কার একটি মারাত্মক রোগ যাতে আক্রান্ত হলে মস্তিষ্কের সমস্যা এমনকি অনেক ক্ষেত্রে মা ও শিশু দুজনই অকাল মৃত্যুর স্বীকার হতে পারে! তাই ধনুষ্টঙ্কার প্রতিরোধী টিকা নেয়া একান্তই আবশ্যক! সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির আওতায় ১৫ বসর থেকে ৪৯ বসর পর্যন্ত সন্তান জন্মদানে সক্ষম নারীদের এই টিকা দেয়া হয়! টিটি টিকার স্বাভাবিক সিডিউল নিম্নে দেয়া হল:

ডোজ টিকা কখন দিবে

১ম ডোজ টিটি ১৫ বসর বয়সে

২য় ডোজ টিটি ১ম ডোজের ২৮ দিন বা ১ মাস পরে

৩য় ডোজ টিটি ২য় ডোজের ৬ মাস পরে

৪র্থ ডোজ টিটি ৩য় ডোজের ১ বসর পরে

৫ম ডোজ টিটি ৪থ ডোজের ১ বসর পরে!

# যদি কোন মা গর্ভ ধারণের আগে অর্থাৎ নিয়মিত টিকাদান সিডিউলে টিটি ৫ ডোজ টিকা না নিয়ে থাকেন তবে তিনি গর্ভ ধারণের ৫ মাস বয়স হলে এক মাসের ব্যাবধানে পরপর ২টা টিটি টিকার ডোজ নিবেন! বাকি ৩টি ডোজ সন্তান প্রসবের পরে উপরোক্ত সিডিউল মোতাবেক নিবেন যাতে মা এবং তার ভবিষ্যত সন্তান সারা জীবন ধনুস্টঙ্কারমুক্ত থাকেন!

# যেসব মায়েরা গর্ভ ধারণের আগে “রুবেলা” টিকা গ্রহণ করেননি তারা গর্ভধারণের পরিকল্পনা করে গর্ভের অন্তত ১ মাস পূর্বে রুবেলার ১ টা টিকা নিয়ে রুবেলা থেকে সুরক্ষিত থাকবেন!

উল্লেখ করা যেতে পারে যে, অনেক ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে ওঠা ক্লিনিকে গর্ভবতী মায়েদের অন্যান্য অনেক টিকা দিয়ে থাকে! কিন্তু বিশেষভাবে মনে রাখতে হবে কিছু টিকা গর্ভকালীন সময়ে নেয়া যাবে না যেমন মাম্পস, হাম, রুবেলা, চিকেন পক্স, বিসিজি, হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস, টাইফয়েডের টিকা!

পন্ডিত উত্তর দিয়েছেন ডিসেম্বর 14, 2017 এ.

গর্ভবতী হওয়ার পূর্বে যে টিকাটি নেওয়া খুব গুরুত্বপূর্ণ, সেটা হচ্ছে রুবেলা টিকা। গর্ভবতী মায়েদের রুবেলার ইনফেকশন হলে সন্তান জন্মগত ত্রুটি নিয়ে জন্মগ্রহণ করতে পারে, এমনকি জন্মের পূর্বেও সন্তানের মৃত্যু হতে পারে। গর্ভবতী হওয়ার আগে রক্ত পরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়ে নিন আপনার রুবেলা প্রতিরোধের ক্ষমতা আছে কি না। আমাদের দেশে অধিকাংশ নারীই নয় মাস বয়সেই হামের সঙ্গে রুবেলার টিকার প্রথম ডোজ নিয়ে থাকেন, আর দ্বিতীয় ডোজটি নিয়ে থাকেন ১৫ বছর বয়সে। যদি আপনার রুবেলা টিকা না নেওয়া থাকে, তাহলে দ্রুত টিকাটি নিয়ে নিন। নিশ্চিত করুন, রুবেলার টিকা নেওয়ার কমপক্ষে এক মাস পর আপনি গর্ভধারণ করছেন। অন্যভাবে বললে, রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে রুবেলার প্রতিরোধ ক্ষমতা আপনার শরীরে তৈরি হয়েছে, এটা নিশ্চিত হয়েই গর্ভধারণ করুন। হুপিং কাশি এমন একটি রোগ যা গর্ভবতী মায়েদের হলে গর্ভের সন্তানের মারাত্মক সমস্যা হতে পারে, এমনকি নিশ্বাসও বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। হেপাটাইটিস বি ইনফেকশনের কারণে লিভারের সমস্যা, এমনকি লিভারের ক্যান্সারও হতে পারে। গর্ভবতী মা যদি হেপাটাইটিস বি-তে আক্রান্ত থাকেন, তাহলে সন্তান জন্ম দেওয়ার সময় সন্তানেও এই রোগ ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এছাড়া গর্ভবতী মায়েদের যদি ফ্লু থাকে, তাহলে গর্ভের সন্তানও বিপদের মধ্যে থাকে। মায়ের ফ্লুয়ের কারণে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই সন্তান জন্ম নিতে পারে, সন্তানের আকার এবং ওজন কম হতে পারে, এমনকি মারাও যেতে পারে। তাই প্রতিটি গর্ভবতী মায়েদের হুপিং কাশি, হেপাটাইটিস বি এবং ফ্লুয়ের টিকা নেওয়া উচিত। আমাদের দেশে এই তিনটি টিকাই রুটিন ইপিআই সিডিউলে টিটেনাস এবং ডিপথেরিয়ার সাথে তিনবার দেওয়া হয়ে থাকে যথাক্রমে ৬ সপ্তাহ, ১০ সপ্তাহ এবং ১৪ সপ্তাহ বয়সে। তাই গর্ভবতী মায়েদের নিশ্চিত হওয়া উচিত বাচ্চাকালে তারা এই টিকাগুলো নিয়েছিলেন কি না। যদি সেই সময়ে না নেওয়া হয়ে থাকে, তাহলে গর্ভধারণের ২৭ থেকে ৩৬ সপ্তাহের মধ্যেই এই তিনটি টিকা একসঙ্গে নেওয়া যেতে পারে। এছাড়াও গর্ভকালীন সময়ে যেন মা এবং অনাগত সন্তান বিপদমুক্ত থাকেন, সেজন্য প্রতিটি নারীকে ১৫ বছর বয়সে হাম এবং রুবেলার টিকার পাশাপাশি টিটির প্রথম ডোজ, ৪ সপ্তাহ পরে দ্বিতীয় ডোজ, ৬ মাস পর তৃতীয় ডোজ, ১ বছর পর চতুর্থ ডোজ এবং চতুর্থ ডোজের ১ বছর পর পঞ্চম ও সর্বশেষ ডোজ নিয়ে নেওয়া উচিত।

শিষ্য উত্তর দিয়েছেন ডিসেম্বর 14, 2017 এ.

আপনার উত্তর

উত্তর দেওয়ার মাধ্যমে আপনি স্বীকার করছেন যে আমাদের নীতিমালাশর্তসমূহ পড়েছেন এবং কোনোরকম প্রতিক্রিয়া ছাড়াই মেনে নিয়েছেন।